সব আশা শেষ! মৃত বলে ঘোষণা কর হবে উত্তরাখণ্ড বিপর্যয়ে নিখোঁজদের

5 days ago 7
Uttarakhand glacier burst

চামোলি: উত্তরাখণ্ড বিপর্যয়ে যারা নিখোঁজ হয়েছে তাদের নিয়ে বড় ঘোষণা করতে চলেছে সরকার। ৭ ফেব্রুয়ারি উত্তরাখণ্ড বিপর্যয়ের পর এখনও পর্যন্ত ১৩৬ জনের কোনও খোঁজ মেলেনি। উত্তরাখণ্ড সরকারের তরফে তাঁদের ডেথ সার্টিফিকেট ইস্যু করা হবে বলে জানানো হয়েছে। যাতে তাঁদের পরিবারের ক্ষতিপূরণের টাকা পেতে সুবিধা হয় তাই এই ঘোষণা করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

নিখোঁজ ব্যক্তিদের তাঁদের “সম্ভাব্য মৃত” ধরে পরবর্তী ধাপে এগনো হবে। বিপর্যয়ের পর এখনও পর্যন্ত ৬৮টি দেহ উদ্ধার করতে পেরেছে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী ও ভারতীয় সেনা। সাধারণত দুর্ঘটনার পর যাঁরা নিখোঁজ হন যদি ৭ বছরের মধ্যে তাঁদের কোনও সন্ধান না পাওয়া যায় তারপর তাঁদের মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। কিন্তু চামোলি জেলার এই দুর্ঘটনাকে ব্যতিক্রম হিসেবে ধরা হচ্ছে। ৭ বছর অতিক্রান্ত হওয়ার আগেই তাঁদের মৃত বলে ঘোষণা করা হবে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে আর্থিক সাহায্যের উদ্দেশ্য়েই এই ঘোষণা করা হবে বলে সরকারি তরফে জানানো হয়েছে।

সরকারি তিনটি ক্যাটেগরিতে নিখোঁজদের ভাগ করে কাজ শুরু করবে। প্রথম ক্যাটেগরিতে থাকবে ওই জেলার নিবাসী এবং স্থানীয়রা। দ্বিতীয় ক্যাটেগরিতে থাকবে উত্তরাখণ্ডের অন্য জেলার বাসিন্দা যারা দুর্ঘটনার সময় ওই জায়গায় উপস্থিত ছিল। আর তৃতীয় ক্যাটেগরিতে পড়বে পর্যটক ও অন্য রাজ্যের বাসিন্দারা। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলিতে উত্তরাখণ্ডের যে কোনও জেলায় এর জন্য অভিযোগ দায়ের করতে হবে।

গত ৭ ফেব্রুয়ারি তুষারধসের ফলে হড়পা বান হয়। অলকানন্দা ও ধৌলিগঙ্গা নদীর জলস্তর প্রবলভাবে বেড়ে যায়। পরিস্থিতি এখনও স্বাভাবিক হয়নি। বহু গ্রামের সঙ্গে এখনও যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। ক্রমশই বেড়ে চলেছে মৃতের সংখ্যা। উদ্ধারকারীরা টানেলের মধ্যে বোরিং মেশিন দিয়ে খননকার্য চালায়। বন্যার ফলে তপোবন বিষ্ণুগড়ের জলবিদ্যুৎ প্রজেক্ট ধ্বংস হয়ে গিয়েছে। টানেলে যারা আটকে ছিলেন তাদের উদ্ধার করার জন্য তিনটি কৌশল অবলম্বন করে NTPC। পাইপের মাধ্যমে জল বের করে চলে ম্যারাথন রেসকিউ অপারেশন।

তপোবন বাঁধের যেখান সবথেকে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে সেখানে কাজ করে ভারতীয় সেনার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ। উদ্ধার কাজ কররার জন্য ও ত্রাণ পাঠানোর জন্য একটি দড়ির সেতু নির্মাণ করা হয়েছিল। এর ফলে ত্রাণ পাঠানো অনেকটাই সহজ হয়ে যায়। যে সব গ্রামের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে তাদের খাবারের প্যাকেট ও চিকিৎসার সরঞ্জাম পাঠানো হয়। প্রায় ১৩টি গ্রামের সঙ্গে এভাবেই সম্পর্ক রাখা হয়। ওই সব এলাকায় ত্রাণ পাঠানোর জন্য ৮ সিটের একটি এয়ারবাস হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হয়। দুর্ঘটনার তিন সপ্তাহ কেটে গেলেও এখনও সব জায়গা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসেনি।

The post সব আশা শেষ! মৃত বলে ঘোষণা কর হবে উত্তরাখণ্ড বিপর্যয়ে নিখোঁজদের appeared first on Kolkata24x7 | Read Latest Bengali News, Breaking News in Bangla from West Bengal's Leading online Newspaper.

Read Entire Article